টিআইবি: আসসালামু আলাইকুম। সাম্প্রতিক সময়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে ‘হ্যাশট্যাগ’ এর বহুল ব্যবহার দেখা যায় কিন্তু সঠিক ব্যবহার খুব কম দেখা যায়। অনেকেই হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করেন ‘স্ট্যাটাস’ এর লেখাকে শৈল্পিক করার জন্য, কেউবা করেন নিজেকে আধুনিক (or Smart) প্রমান করার জন্য বা কথার গুরুত্ব বোঝানোর জন্য (* চিহ্নের বদলে), কেউ করেন শুধুমাত্র লেখার রং বদলানোর জন্য, আর কেউ করেন খামোখা না বুঝে।

হ্যাশট্যাগ এর ভুলভাল ব্যবহার অনেকক্ষেত্রে সমস্যার সৃষ্টি করে, বিরক্তি উৎপাদন করে এবং ক্ষেত্র বিশেষে অন্যকে বিব্রতও করে। তাই আসুন জেনে নেই হ্যাশট্যাগ কি? হ্যাশট্যাগ কোথায় ও কিভাবে ব্যবহৃত হয় এবং এর ভুলভাল ব্যবহারের সমস্যা।

হ্যাশট্যাগ কি?

‘#’ বর্গাকার এক চিহ্নটির নাম ”হ্যাশ”। আর ‘ট্যাগ’ ? Price Tag বা Name Tag এর সাথে নিশ্চই সবার পরিচয় আছে। দোকানে নতুন জামা-কাপড়ের সাথে মুল্য লেখা যে এক টুকরা কাগজ থাকে তা হল Price Tag। আর Name Tag দেখা যায় গবেষণাগারে বা ক্লিনিকে কোন স্যাম্পল এর গায়ে।

মোদ্দাকথা, কোন কিছু চিহ্নিত করতে Tag ব্যবহৃত হয়। ঠিক তেমনি, ‘হ্যাশ ট্যাগ’ হল অসাধারণ এক কৌশল (strategy; কোন আর্ট বা স্টাইল নয়) যা দ্বারা কোন keyword কে চিহ্নিত করে সোশ্যাল মিডিয়াতে message/status সমূহ শ্রেণীকরণ (categorizing) করা যায়।

কোন একটি বিষয়ে বা থিম সংক্রান্ত আলোচনায় কোন ব্যক্তিকে সুকৌশলে পরিচালিত করার এক অসাধারণ মার্কেটিং কৌশল হলো এই ‘হ্যাশ ট্যাগ’। জেনে অবাক হবেন, এর জন্য একটি নিবেদিত প্রাণ ওয়েবসাইটও আছে যার ঠিকানা হল https://www.hashtags.org/

হ্যাশট্যাগ কিভাবে ও কোথায় ব্যবহৃত হয়?

সাধারনভাবে সবাই বুঝি যে কোনো শব্দের আগে # চিহ্ন বসিয়ে দিলেই হয়ে গেল হ্যাশট্যাগ। যেমন: #আমার #জন্মদিনের #ফটো। ব্যাপারটা মোটেও এরকম না। হ্যাশট্যাগ শুধুমাত্র keyword এর আগে বসবে, তাহলে দেয়া উদাহরনটাতে কীওয়ার্ড কোনটা? তালগোল লেগে যাচ্ছে তো? উদাহরণের হ্যাশট্যাগটি হওয়া উচিত ছিল #আমার_জন্মদিনের_ফটো। ব্যাপারটা আরোও পরিস্কার করতে আরো কিছু উদাহরণ ও ব্যাখ্যা দেয়া যাক।

কোনো একটি keyword এর আগে হ্যাশট্যাগ দিলে শব্দটির রং বদলে নীল হয় যার মানে হল সেখানে একটি লিংক তৈরী হল। এবার, যে কেউ এই হ্যাশট্যাগ যুক্ত করে কোন স্ট্যাটাস পোস্ট করলে সেসব স্ট্যাটাস এই হ্যাশট্যাগ এর ক্যাটাগরিতে অন্তর্ভুক্ত হবে। উদাহরণ দেয়া যাক, কেউ একজন Dilwale ছবি দেখে এসে স্ট্যাটাস দিল ” অসাধারণ ছবি #Dilwale পয়সা উসুল!! আরেকজন তার ওয়েবসাইট এর মার্কেটিং এর জন্য স্ট্যাটাস দিল “ফ্রি ডাউনলোড করুন #Dilwale মুভি www. অমুক সাইটে” আরেকজন লিখল “পুরা ফালতু ছবি #Dilwale বুড়াকালের ভিমরুতি! আমারে কেউ মাইরালা”। লক্ষ্য করুন, এরা তিনজনই তাদের স্ট্যাটাসে #Dilwale হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করেছে যার ফলে সমস্ত স্ট্যাটাসগুলো #Dilwale হ্যাশট্যাগের অধীনে categorized থাকবে এবং আপনি যখন #Dilwale হ্যাশট্যাগের লিঙ্কে ক্লিক করবেন ওই সমস্ত স্ট্যাটাস প্রদর্শিত হবে। ধরুন, ছবিটি দেখতে যাওয়ার আগে তার রিভিউ পড়তে চাইলেন। ক্লিক/সার্চ করুন #Dilwale, দেখতে পাবেন কার কি বক্তব্য। ছবির পরিচালক জানতে চাইল দর্শক প্রতিক্রিয়া, #Dilwale হ্যাশট্যাগ আছেনা!

সামাজিক আন্দোলনেও হ্যাশট্যাগের বহুল ব্যবহার দেখা যায়। যেমন: নারীর প্রতি অন্যায়ের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী একটি জোড়ালো আন্দোলন হল Speak Up। যার বক্তব্য হল নারী অত্যাচার দেখলে কথা বলতে হবে। সামনাসামনি না পারলে অনলাইন #Speakup হ্যাশট্যাগে জানিয়ে সবাইকে সচেতন করুন, জনমত গড়ে তুলুন।

এত গেল বানিজ্যিক ব্যবহার, আপনার ব্যক্তিগত কাজে কিভাবে ব্যবহার করবেন?

ধরুন, আপনার জন্মদিনের বেশ কিছু ছবি ফেইসবুকে আপলোড করলেন। আপনার ইচ্ছা এই ছবিগুলো আপনার বিভিন্ন পেজের ফলোয়াররাও দেখুক, কাউকে মেসেজ করেও জানাতে চাইলেন ছবিগুলোর ব্যাপারে। সহজ, একটা হ্যাশট্যাগ জুড়ে দিন আপনার স্ট্যাটাসে। যেমন: “অসাধারণ একটা জন্মদিন পালন করলাম আর এই হল আমার #সেরা_জন্মদিনের_ছবি”। এবার, এই হ্যাশট্যাগ জুড়ে দিন আপনার বিভিন্ন পেজ এর স্ট্যাটাসে, মেসেজে। যারা আপনার ওই ছবিগুলো দেখতে ইচ্ছুক #সেরা_জন্মদিনের_ছবি হ্যাশট্যাগে ক্লিক করলে বা সার্চ করলে দেখতে পারবে সব ছবি, কষ্ট করে বারবার আপনার আপলোড করতে হবেনা।

হ্যাশট্যাগ ভুলভাল ব্যবহারের যন্ত্রণা:

এবার বলুন আপনি যদি ফেইসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন” #আমারে #কেউ #মাইরালা, #রহিম #এর #কথায় #দিলওয়ালে #দেইখা #পুরা #টাকা #জলে” তাহলে লোকজন আপনাকে কি আদৌ স্মার্ট ভাববে? এখানে সব শব্দের আগে # লাগিয়ে সবগুলোকে লিংক এবং keyword বানিয়ে দিয়েছেন। ব্যাপারটা এরকম – আপনাকে বলা হল, বনের কিছু গাছে হলুদ ট্যাগ লাগানো আছে। এই ট্যাগ ধরে হাটলে আপনি বনের অপর প্রান্তে বের হতে পারবেন। এবার, আপনি যখন বনে ঢুকলেন, দেখলেন নির্বিশেষে সব গাছে হলুদ ট্যাগ লাগানো। তখন আপনার যেমন বিভ্রান্তিকর অবস্থা হবে ঠিক তেমনি বিভ্রান্তিকর এই স্ট্যাটাসটি। তার উপর ওই স্ট্যাটাসে আপনি রহিমের নামের আগে হ্যাশ লাগিয়ে তার ব্যক্তিগত অনেক তথ্য জনসমক্ষে নিয়ে এসেছেন যার অধিকার আপনার নেই। কেউ #রহিম এ ক্লিক করলেই সারে-সর্বনাশ।

অনেকেই ফেইসবুকের closed group এর অনেক গোপন স্ট্যাটাসে হ্যাশট্যাগ জুড়ে দেন অধিক গুরুত্ব দেয়ার জন্য অথচ বুঝতেও পারেননা আপনার ‘ওভার স্মার্টনেস’ এর কারণে দলের গোপন কথা প্রকাশ্যে চলে এলো।

আবার এমন দেখেছি, অনেক মেয়ে তাদের কিছু ছবি আপলোড করে সৌন্দর্য্য প্রকাশে যত রকম শব্দ আছে হ্যাশট্যাগ দিয়ে জুড়ে দেন স্ট্যাটাসে, যদিও ‘privacy setting’ রাখেন Friends only । কি লাভ হলো তাতে? যখন অচেনা কেউ ওই সমস্ত হ্যাশট্যাগের একটিতে ক্লিক/সার্চ করবে আপনার ছবিগুলোও চলে যাবে তার হাতে। সেটা কি ভাল হল? এদের কাছে জানতে চাইব, আপনি কি আপনার মার্কেটিং করছেন? কোন বাজারে আপনাকে বেচতে চাইছেন?

পরিশেষে অন্যকে অন্ধ অনুকরণ নয়, যা করবেন জেনে করবেন, বুঝে করবেন। প্রযুক্তির ভুল ব্যবহার অনেক সময় অপূরণীয় ক্ষতি ডেকে আনতে পারে। সুতরাং, সচেতন থাকুন, নিরাপদ থাকুন। টেকনো ইনফো বিডি’র সাথে থাকার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ।

কার্টেসি: আসলাম খান শুভ।

Leave a Reply