আর্থিক প্রতিষ্ঠানের খেলাপিদের এককালীন ঋণ পরিশোধের বিশেষ সুযোগ

ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণগ্রস্ত গ্রাহকদের ঋণের দায় এড়াতে বড় অঙ্কের সুদ মওকুফ সুবিধাসহ ঋণ পরিশোধের সুযোগ দিতে ‘এককালীন এক্সিট’ নামে সার্কুলার জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে সৃষ্ট অর্থনৈতিক সংকট বা অন্য কোনো কারণে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের যেগুলো অস্তিত্ব সংকটে বা বন্ধ হওয়ার উপক্রম অবস্থায় আছে, তাদের ঋণ দায় শোধ করতে এ সুবিধা দেওয়া হচ্ছে বলে সার্কুলারে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

আরও দেখুন:
বাংলাদেশ ব্যাংকে রক্ষিত অর্থ থেকে ঋণ না দেওয়ার নির্দেশ
ব্যাংক বহির্ভূত মুদ্রা বাড়ছে অস্বাভাবিক হারে কমছে আমানত

টেকনো ইনফো বিডি‘র প্রিয় পাঠক: প্রযুক্তি, ব্যাংকিং ও চাকরির গুরুত্বপূর্ণ খবরের আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ টেকনো ইনফো বিডি তে লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগ থেকে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধান নির্বাহী বা ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের উদ্দেশ্যে জারি করা এ সার্কুলারে বলা হয়েছে, এককালীন বা সর্বোচ্চ এক বছরের মধ্যে ঋণ পরিশোধের শর্তে ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের খেলাপি ঋণগ্রাহকরা সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ সুদ মওকুফ সুবিধা পাবেন।

এ সুবিধা নিতে হলে আগামী ৩০ এপ্রিলের মধ্যে সংশ্লিষ্ট গ্রাহককে ২০২১ সালের ৩১ ডিসেম্বর তারিখে ঋণের সর্বশেষ স্থিতির কমপক্ষে ২ শতাংশ ‘ডাউনপেমেন্ট’ দিয়ে আবেদন করতে হবে। এ সার্কুলার জারির আগে কোনো ঋণ কিস্তি বা অংশ বিশেষ পরিশোধ করে থাকলে তা ‘ডাউনপেমেন্ট’ হিসেবে গণ্য হবে না।

সার্কুলারে বলা হয়েছে, ২ শতাংশ ডাউনপেমেন্টসহ এমন আবেদন পেলে সংশ্লিষ্ট আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে ৬০ দিনের মধ্যে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত দিতে হবে।

তবে জাল-জালিয়াতি বা কোনো ধরনের প্রতারণা বা অনিয়মের মাধ্যমে নেওয়া ঋণের ক্ষেত্রে এ সুবিধা মিলবে না।

সার্কুলারে বলা হয়েছে, চাইলে সংশ্লিষ্ট আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদ এমন গ্রাহককে ঋণের আরোপিত সুদের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ মওকুফ করতে পারবে। এর বাইরে অনারোপিত সুদ বা অন্য কোনো জরিমানা বা চার্জ বা ফিও মওকুফ করতে পারবে। তবে কোনোভাবেই মূল ঋণ বা ঋণের আসল অর্থ মওকুফ করতে পারবে না।

ঋণ প্রদানের দিন থেকে ঋণ সমন্বয় বা পুরো আদায়ের দিন পর্যন্ত আদায়যোগ্য অর্থের ওপর ‘কস্ট অব ফান্ড’ সুদ (ইসলামি শরিয়াহ মাফিক অর্থায়নের ক্ষেত্রে মুনাফা) আরোপ করতে পারবে আর্থিক প্রতিষ্ঠান।

সম্পূর্ণরূপে পরিশোধ না করা পর্যন্ত এ ঋণ ‘শ্রেণীকৃত’ বা খেলাপি হিসেবে বিবেচনা করা হবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এ সংক্রান্ত সার্কুলারে আরও বলা হয়েছে, সুদ মওকুফের সিদ্ধান্ত অনুমোদন পেলে মওকুফকৃত সুদ হিসাব একটি পৃথক সুদবিহীন ব্লকড হিসাবে স্থানান্তর করতে হবে। ঋণের সমুদয় অর্থ আদায় হলে সুদ মওকুফ কার্যকর হবে। এর আগে সুদ বা মুনাফা কোনোভাবেই সংশ্লিষ্ট আর্থিক প্রতিষ্ঠান তার আয় খাতে দেখাতে পারবে।

খেলাপি ঋণ আদায়ে কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠান তার গ্রাহকদের বিরুদ্ধে মামলা করে থাকলে, তাদের কারও থেকে এমন ‘এক্সিট’ আবেদন পেলে সোলেনামার ভিত্তিতে ওই মামলা স্থগিত রাখতে পারবে ঋণ প্রদানকারী আর্থিক প্রতিষ্ঠান।

পরবর্তীতে ‘এক্সিট প্লান’ এর শর্ত ভঙ্গ করলে ওই গ্রাহককে প্রদত্ত সব সুবিধা বাতিল বলে গণ্য হবে এবং মামলা পুনরুজ্জীবিত করাসহ ঋণ আদায়ে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া যাবে বলেও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সার্কুলারে বলা হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button