টিপস এন্ড ট্রিকস

নতুন ম্যালওয়্যার এজেন্ট স্মিথ, আক্রান্ত অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইজ ২.৫ কোটি!

বিশ্বব্যাপী ২.৫ কোটিও বেশি অ্যান্ড্রয়েড ফোন ‘এজেন্ট স্মিথ’ নামক নতুন এক ম্যালওয়্যারে আক্রান্ত হয়েছে। শুধু ভারতে এ ম্যালওয়্যার দেড় কোটি অ্যান্ড্রয়েড ফোনে পৌঁছেছে। এছাড়া বাংলাদেশ ও পাকিস্তানেও এ ম্যালওয়্যার ছড়িয়ে পড়েছে। বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান চেক পয়েন্ট রিসার্চের এক প্রতিবেদনে এমনটাই দাবি করা হয়েছে। খবর এনডিটিভি।

টেকনো ইনফো বিডি‘র প্রিয় পাঠক: প্রযুক্তি, ব্যাংকিং ও চাকরির গুরুত্বপূর্ণ খবরের আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ টেকনো ইনফো বিডি তে লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন।

চেক পয়েন্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী, শুরুতে গুগল অ্যাপ হিসেবে এ ম্যালওয়্যার অ্যান্ড্রয়েড ফোনে প্রবেশ করে। পরবর্তীতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে গুগল অ্যাপের পরিবর্তে এ ম্যালওয়্যার নিজের অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করে নেয়। ডিভাইস ব্যবহারকারীদের অজান্তেই এ ঘটনা ঘটছে। এছাড়া সিকিউরিটি সম্পর্কিত ‘লটুর’ নামের একটি ম্যালওয়্যারের উপস্থিতির কথা জানিয়েছেন গবেষকরা।

চেক পয়েন্টের দাবি, অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস ব্যবহারকারীদের ভুয়া অ্যাপ ইনস্টলের সুবিধা দিয়ে ফোনে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে বিপুল অংকের অর্থ উপার্জন করছে এজেন্ট স্মিথ ম্যালওয়্যার। তাই শক্তিশালী এ ম্যালওয়্যার খুব সহজেই অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নিতে সক্ষম। আপাতত বিজ্ঞাপন প্রদর্শন ছাড়া এজেন্ট স্মিথ আর কী ধরনের কাজ করছে, তা বোঝা যায়নি। ডিভাইস ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য বেহাত হওয়ার মতো কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

সাইবার নিরাপত্তা গবেষকরা সম্প্রতি ‘হামিংবার্ড কপিক্যাট’ নামে নতুন এক ম্যালওয়্যারের উপস্থিতি শনাক্ত করেন, যা অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছিল। এজেন্ট স্মিথ হামিংবার্ড কপিক্যাটের মতোই দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে বলে জানানো হয়। এ ধরনের ম্যালওয়্যার ডিভাইস ব্যবহারকারীদের বিজ্ঞাপন দেখিয়ে কয়েক কোটি ডলার হাতিয়ে নিয়েছে বলে দাবি করা হয়।

জানা যায়, তৃতীয় পক্ষের অ্যাপ স্টোর ‘৯অ্যাপস’ থেকে এজেন্ট স্মিথ ছড়িয়ে পড়েছে। তবে আরবি, হিন্দি, ইন্দোনেশিয়ান ও রুশ ভাষায় চলা ফোনে এ ম্যালওয়্যার বেশি দেখা গেছে। ভারত, বাংলাদেশ ও পাকিস্তানে এ ম্যালওয়্যার সবচেয়ে বেশি ছড়িয়ে পড়েছে।

শুধু ভারত বা এশিয়ার গুলোতেই নয়, সিকিউরিটি গবেষকগন অ্যামেরিকাতেও এর ম্যালওয়্যারের প্রভাব ট্রেস করেছে এবং কমপক্ষে ৩ লাখেরও বেশি ডিভাইজ আক্রান্ত হয়েছে ইতিমদ্ধে! শুধু ৯অ্যাপসই নয়, গুগল প্লে স্টোরে কমপক্ষে আরও ১১টি অ্যাপ এই ম্যালিসিয়াস কোডের সাথে পাওয়া গেছে। যদিও গুগল প্লে স্টোর থেকে সেই অ্যাপ গুলোকে রিমুভ করেছে!

কিভাবে এই ম্যালওয়্যার থেকে বাঁচা যাবে?

এজেন্ট স্মিথ এই ধরণের ম্যালওয়্যার অ্যাটাক থেকে বাঁচতে শুধু মাত্র গুগল প্লে স্টোর ব্যাতিত অন্য কোন অ্যাপ স্টোর ইউজ করা যাবে না। শুধু প্লে স্টোর ইউজ করলেই হবে না, কোন নতুন অ্যাপ ডাউনলোড করার সময় একটু অনুসন্ধান করে দেখতে হবে অ্যাপটি কোন ডেভেলপার থেকে এসেছে এবং অ্যাপটির রিভিউ কেমন।

Leave a Reply

Back to top button