জানা যাচ্ছে কোন পিসি বা মোবাইল ডিভাইসের সাপোর্ট ছাড়াই একা কাজ করতে পারবে অ্যাপেলের এই ভি আর ডিভাইস। যদিও ওয়ারলেসে এই ডিভাইস কানেক্টেড থাকতে পারবে পিসি বা মোবাইলের সাথে। এছাড়াও এই ভি আর এর প্রসেসার বাজারের অন্য যে কোন ভি আর এর প্রসেসারের থেকে শক্তিশালী হবে বলে জানানো হয়েছে এই রিপোর্টে।

গত বছর ব্লুমবার্গ জানিয়েছিল ২০২০ সালে অ্যাপেল নিজেদের অগমেন্টেড রিয়েলিটি ডিভাইস লঞ্চ করবে। আর এবার CNET এর এই রিপোর্ট সেই খবরকেই আরও পোক্ত করলো। যদিও একই ডিভাইসে কিভাবে অগমেন্টেড রিয়ালিটি ও ভার্চুয়াল রিয়ালিটি একসাথে বসাবে তা এখনো জানা যাচ্ছে না। এছাড়াও এই হেডসেটের দাম নিয়েও কোন তথ্য জানা যায়নি এখনো।

এ আর ও ভি আর বাজারে এখনো পা রাখেনি অ্যাপেল। গুগুল একা আধিপত্য দেখিয়েছে এ আর ও ভি আর বাজারে। এবার অ্যাপেল যদি ভার্চুয়াল রিয়েলিটির বাজারে প্রবেশ করে তবে নিঃসন্দেহে চাঙ্গা হবে অগমেন্টেড রিয়ালিটি ও ভার্চুয়াল রিয়ালিটির বাজার।

অ্যাপেল সিইও টিম কুক বরাবরই অগমেন্টেড রিয়ালিটির ভক্ত। তিনি বিশ্বাস করেন অগমেন্টেড রিয়ালিটি বদলে দেবে মানুষ কিভাবে কমিউনিকেট করবে। মাইক্রোসফট, ফেসবুক, সনি, এইচ টি সি ইতিমধ্যেই এ আর ও ভি আর বাজারে থাবা বসিয়েছে। এবার দেখা অ্যাপেলের এ আর ও ভি আর মার্কেটে এই লেট এনট্রি কতটা চাঙ্গা করে নতুন অপেক্ষাকৃত নতুন এই বাজারকে।

Leave a Reply