মোবাইল ব্যাংকিং থেকে টাকা পাঠানো যাবে ব্যাংকে

2

মোবাইল ব্যাংকিং হিসাব থেকে ব্যাংক হিসাবে টাকা জমা দেয়ার পদ্ধতি আগামী মঙ্গলবার থেকে চালু হচ্ছে। এ পদ্ধতি চালুর ফলে ব্যাংক থেকেও সব মোবাইল ব্যাংকিং সেবায় টাকা পাঠানো যাবে। আবার বিকাশ, রকেট, এমক্যাশ ও ইউক্যাশের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো নিজেদের মধ্যে টাকা লেনদেন করতে পারবে।

মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস ও ব্যাংকের মধ্যে এ আন্তঃলেনদেনকে ইন্টারঅপারেবল বলে সম্বোধন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পেমেন্ট সিস্টেম বিভাগ থেকে জারিকৃত এক প্রজ্ঞাপনে এ সংক্রান্ত নীতিমালা প্রকাশ করা হয়। প্রজ্ঞাপনে ব্যাংক থেকে এমএফএসে এবং এমএফএস থেকে ব্যাংকে অর্থ লেনদেনের ফি সুনির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়, ইন্টারঅপারেবল ব্যবস্থা বাস্তবায়নের প্রথম ধাপে এক এমএফএস হিসাব হতে অন্য এমএফএস হিসাবে, এমএফএস হিসাব হতে ব্যাংক হিসাবে এবং ব্যাংক হিসাব হতে এমএফএস হিসাবে অর্থ স্থানান্তরের ক্ষেত্রে লেনদেনকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে ইন্টারচেঞ্জ ফি প্রযোজ্যের হার হবে:

এক এমএফএস প্রোভাইডারের হিসাব হতে অন্য এমএফএস প্রোভাইডারের (পি-টু-পি) হিসাবে অর্থ স্থানান্তরের ক্ষেত্রে প্রাপক এমএফএস প্রোভাইডার প্রেরক এমএফএস প্রোভাইডার-কে সাকুল্যে লেনদেনকৃত অর্থের শূন্য দশমিক ৮০ শতাংশ (০.৮০%) ফি প্রদান করবে। অর্থাৎ বিকাশ থেকে যদি রকেটে ১ হাজার টাকা স্থানান্তর হয়, তাহলে রকেট বিকাশকে ৮টাকা ফি দিবে।

ব্যাংক হিসাব থেকে এমএফএস হিসাবে এবং এমএফএস হিসাব হতে ব্যাংক হিসাবে অর্থ স্থানান্তরের উভয় ক্ষেত্রেই সংশ্লিষ্ট এমএফএস প্রোভাইডার সংশ্লিষ্ট ব্যাংক-কে সাকুল্যে লেনদেনকৃত অর্থের শূন্য দশমিক ৪৫ শতাংশ (০.৪৫%) ফি প্রদান করবে।

অর্থাৎ ব্র্যাক ব্যাংকের হিসাব থেকে রকেটে কিংবা রকেট থেকে ঢাকা ব্যাংকের কোন হিসাবে অর্থ স্থানান্তর হলে ১ হাজার টাকায় সাড়ে ৪ টাকা প্রেরক প্রতিষ্ঠানকে ফি দিবে।

ইন্টারঅপারেবল লেনদেনের জন্য অংশগ্রহণকারী ব্যাংক ও এমএফএস গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যমান লেনদেন ফি-এর অতিরিক্ত কোন চার্জ ধার্য করতে পারবে না। ইন্টারঅপারেবল ব্যবস্থায় লেনদেনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক বা এমএফএস হিসাবের প্রকরণ অনুসারে নির্ধারিত লেনদেন সীমা প্রযোজ্য হবে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, আপাতত যেসব ব্যাংক ও মোবাইল আর্থিক সেবাদাতা (এমএফএস) প্রতিষ্ঠান আন্তঃলেনদেন প্রক্রিয়া পরীক্ষামূলকভাবে শেষ করেছে তারাই এই সেবা চালু করতে পারবে। আর যেসব ব্যাংক ও এমএফএস এখনও আন্তঃলেনদেন সংক্রান্ত প্রস্তুতি শেষ করতে পারেনি, তাদেরকে এই সেবা চালু করতে ২০২১ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত সময় দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

2 COMMENTS

  1. এখনই উপযোগী সময় বর্তমান প্রযুক্তির সর্বোচ্চ প্রয়োগ ঘটিয়ে ইন্টাগ্রেটেড ব্যাংকিং মডেল নিয়ে কাজ করা যেখানে সকল ব্যাংকের সবগুলো সার্ভিস পয়েন্টকে সকলের তথা সকল ব্যাংক, সকল গ্রাহক, সরকার ও জনগণের পারস্পরিক সম্পর্কের সুবাদে মিলনমেলা।
    প্রত্যেকটি ইন্ড পয়েন্ট হোক শুধুমাত্র ব্যাংকে নয় বরং আন্তর্জাতিক অর্থনীতিতে প্রবেশের দ্বার।

Leave a Reply