হোমব্যাংকিংব্যাংক সার্কুলারমোবাইল ব্যাংকিংয়ে লেনদেনের সীমা বাড়লো

মোবাইল ব্যাংকিংয়ে লেনদেনের সীমা বাড়লো

মোবাইল ব্যাংকিংয়ে লেনদেনের সীমা পুনঃনির্ধারণ করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন থেকে গ্রাহকরা দিনে এজেন্ট থেকে ৩০ হাজার টাকা ও ব্যাংক হিসাব বা কার্ড থেকে ৫০ হাজার টাকা জমা করতে পারবেন। দিনে যত বার ইচ্ছে, তত বারই করা যাবে। আগে সর্বোচ্চ পাঁচ বার টাকা ক্যাশ ইন করা যেত।

আরও দেখুন: কতটা ভালো আছে বাংলাদেশের ব্যাংক খাত?

সোমবার (২৫ এপ্রিল) বাংলাদেশ ব্যাংকের পেমেন্ট সিস্টেমস ডিপার্টমেন্ট এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করেছে।

টেকনো ইনফো বিডি‘র প্রিয় পাঠক: প্রযুক্তি, ব্যাংকিং ও চাকরির গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলোর আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ টেকনো ইনফো বিডি এবং মতামত প্রকাশের জন্য ফেসবুক গ্রুপ টেকনো ইনফো বিডি এ লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশের সামগ্রিক পরিশোধ ব্যবস্থায় মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। কোভিড-১৯ উদ্ভূত পরিস্থিতিতে এমএফএসের আওতা এবং লেনদেনের ব্যাপ্তি প্রসারের পাশাপাশি এ মাধ্যম ব্যবহার করে সরকারের বিভিন্ন প্রণোদনা, শিক্ষা, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আর্থিক সহায়তা প্রদান ইত্যাদি কার্যক্রম ব্যাপক হারে বেড়েছে। একই সঙ্গে স্বল্প আয়ের জনগণের মাঝেও এমএফএস ব্যবহারের প্রবণতা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। ফলে, এমএফএসের ক্রমবর্ধমান চাহিদার কথা বিবেচনা করে এবং ইলেকট্রনিক পেমেন্টকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে এমএফএসের ব্যক্তিক হিসাবের লেনদেনের সীমা পুনঃনির্ধারণ করা হয়েছে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, এখন থেকে ব্যক্তি হিসাবে দৈনিক ক্যাশ ইন ৩০ হাজার টাকা করা যাবে। মাসিক ক্যাশ ইন করা যাবে ২ লাখ টাকা। তবে, ব্যাংক ট্রান্সফার (ব্যাংক হিসাব ও কার্ড) দৈনিক ৫০ হাজার টাকা এবং মাসিক ৩ লাখ টাকা ক্যাশ ইন করা যাবে।

ব্যক্তি হিসাবে ক্যাশ আউটের সীমা দৈনিক ২৫ হাজার টাকা এবং মাসিক ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এছাড়া, পি টু পি (অর্থ প্রেরণ ও গ্রহণ সর্বসাকুল্যে) দৈনিক ২৫ হাজার টাকা এবং মাসিক ২ লাখ টাকা করা যাবে।

নির্দেশনায় আরো বলা হয়েছে, একজন গ্রাহক তার ব্যক্তি মোবাইল হিসাবে সর্বোচ্চ ৩ লাখ টাকা স্থিতি রাখতে পারবেন। তবে, এমএফএস প্রোভাইডার প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের প্রতিষ্ঠানের ঝুঁকি বিশ্লেষণ অনুসারে আলোচ্য সীমা অতিক্রম না করে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের লেনদেনের সীমা নির্ধারণ করতে পারবে। এছাড়া, ২০১৯ সালের ১৯ মে জারি করা নির্দেশনার অন্যান্য বিষয় অপরিবর্তিত থাকবে।

এ সম্পর্কিত আরও দেখুন

Leave a Reply

- Advertisment -

এ সপ্তাহের জনপ্রিয় পোস্ট

- Advertisment -

সর্বশেষ পোস্ট

- Advertisment -
%d bloggers like this: