জুনিয়র কমিশন্ড অফিসার (ওয়ারেন্ট অফিসার) হিসেবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে ক্যারিয়ার গড়ুন

0

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে সেনাশিক্ষা কোর (Army Education Corps-AEC) এ জুনিয়র কমিশন্ড অফিসার (ওয়ারেন্ট অফিসার) হিসেবে সরাসরি নিয়োগ করা হবে। ওয়ারেন্ট অফিসার পদের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হবে ১০ নভেম্বর, ২০১৯ মধ্যে।

শিক্ষাগত যোগ্যতা:
– প্রার্থীকে বিএ/বিএসসি/বিকম (শিক্ষা প্রশিক্ষণে ডিগ্রি/ডিপ্লোমা এবং শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা অতিরিক্ত যোগ্যতা বলে বিবেচিত হবে) পাস হতে হবে।
– স্নাতক ডিগ্রিধারী অথবা সমমান পরীক্ষায় ন্যূনতম সিজিপিএ ২.০ এবং
– এসএসসি ও এইচএসসি অথবা সমমান পরীক্ষায় ন্যূনতম জিপিএ ৩.০ থাকতে হবে।

বয়সসীমা:
– ০২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ তারিখে সর্বনিম্ন ২০ বছর এবং সর্বোচ্চ ২৮ বছর। বয়সের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য হবে না।

শারীরিক যোগ্যতা:
– উচ্চতা: ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি,
– ওজন: ৪৯.৯০ কেজি,
– বুক: স্বাভাবিক ৩০ ইঞ্চি ও সম্প্রসারিত ৩২ ইঞ্চি।

বৈবাহিক অবস্থা:
– প্রার্থীকে অবশ্যই অবিবাহিত হতে হবে। (বিপত্নীক/ বিবাহ বিচ্ছেদকারী নয়)।

প্রার্থীর ধরন:
– শুধু মাত্র পুরুষ প্রার্থীরাই আবেদন করতে পারবেন।

স্বাস্থ্য:
– পরীক্ষা স্বাস্থ্য পরীক্ষা যোগ্য।

সাঁতার:
– সাঁতার জানা অত্যাবশ্যক (ন্যূনতম ৫০ মিটার)।

নিম্নবর্ণিত ব্যক্তিগণ দরখাস্ত করার জন্য উপযুক্ত বলে বিবেচিত হবে না:
– সরকারি চাকরি থেকে বরখাস্ত,
– ফৌজদারি মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত ও
– শিক্ষাগত বিফলতা ছাড়া অন্য কোনো কারণে কোনো সামরিক প্রতিষ্ঠান থেকে প্রত্যাহারকৃতরা আবেদনের যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন না।

আবেদনের নিয়ম:
– আগ্রহী প্রার্থীদেরকে http://army.teletalk.com.bd এই ওয়েবসাইটে আবেদনপত্র পূরণ করতে হবে। এরপর টেলিটকের প্রি-পেইড মোবাইল হতে ওয়েবসাইটে বর্ণিত পদ্ধতি মোতাবেক ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস করে আবেদন ফি ৫০০ টাকা জমা দিতে হবে।
– আবেদন ফি জমা দেওয়ার পর আবেদনপত্র কোনোভাবেই পরিবর্তন করা যাবে না। আবেদন ফি জমা দেওয়ার পর প্রাপ্ত ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে ওই ওয়েবসাইটে লগইন করতে হবে। সফলভাবে লগইন করার পর প্রার্থী প্রাথমিক নির্বাচনী পরীক্ষার জন্য একটি প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতঃ প্রিন্ট করতে হবে।

প্রাথমিক নির্বাচনী পর্ষদের নিকটে নিম্নবর্ণিত দলিল-দস্তাবেজ জমা করতে হবে:
– অনলাইনে পূরণ করা আবেদনপত্রের সঙ্গে ৮ কপি পাসপোর্ট ও স্ট্যাম্প সাইজের ৬ কপি গেজেটেড অফিসার কর্তৃক সত্যায়িত রঙিন ছবি,
– শিক্ষাগত যোগ্যতার সত্যায়িত সনদ ও মার্কশিটের ফটোকপি,
– জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি ও
– প্রাথমিক নির্বাচনী পরীক্ষার প্রবেশপত্র ইত্যাদি কাগজপত্র প্রাথমিক নির্বাচনী পর্ষদের কাছে জমা দিতে হবে।

সুবিধাদি:
– নিয়োগপ্রাপ্তরা নির্ধারিত স্কেলে বেতন, ভাতা, পেনশনসহ বিনা মূল্যে আহার, বাসস্থান, সরকারি পোশাক-পরিচ্ছদ, পরিবারবর্গের জন্য বিনা মূল্যে চিকিৎসা, ভর্তুকি মূল্যে রেশন, সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরীণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সন্তানদের লেখাপড়ার সুযোগ, নীতিমালা অনুযায়ী জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনীতে যোগদান করে বিদেশ ভ্রমণের সুযোগ পাবেন।

নিয়োগ-প্রক্রিয়া:
– প্রাথমিক নির্বাচনী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের নির্বাচনী পর্ষদের কাছ থেকে পর্ষদ সভাপতির স্বাক্ষরসংবলিত লিখিত পরীক্ষার প্রবেশপত্র সংগ্রহ করতে হবে।
– প্রবেশপত্র ছাড়া কেউ লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে না।
– উত্তীর্ণ প্রার্থীদের আগামী ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ শুক্রবার সকাল ৯টায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজ, ঢাকা সেনানিবাসে লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।
– প্রার্থীদের পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষাকেন্দ্রে উপস্থিত হতে হবে।
– লিখিত পরীক্ষার ফলাফল আগামী ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ওয়েবসাইটে (http//www.army.mil.bd) প্রকাশ করা হবে।
– লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের চূড়ান্ত ডাক্তারি পরীক্ষা ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।

প্রয়োজনীয় লিংক:
– সম্পূর্ণ সার্কুলার দেখতে ক্লিক করুন এখানে
– অনলাইনে আবেদন করতে ক্লিক করুন।

আবেদন করুন

আবেদনের সময়:
– আবেদন শুরুর তারিখ ১৮ অক্টোবর, ২০১৯
– আবেদনের শেষ তারিখ ১০ নভেম্বর, ২০১৯।

সূত্রঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন, ১৮ অক্টোবর, ২০১৯।

Leave a Reply