ঘরে বসে যত ব্যাংকিং সেবা দিচ্ছে ইসলামী ব্যাংক

0
Islami Bank

করোনাভাইরাসের প্রকোপ যখন বাড়ছে, তখন বেসরকারি খাতের ইসলামী ব্যাংক গ্রাহকদের জন্য আনছে নতুন নতুন সেবাপণ্য, যার সর্বশেষ সংযোজন হোয়াটসঅ্যাপ সেবা। এর মাধ্যমে ইসলামী ব্যাংকের গ্রাহকেরা বিশ্বের যেকোনো প্রান্ত থেকে ব্যাংকিং সেবা নিতে পারছেন।

এ ছাড়া আগে থেকে চালু করা সেলফিন অ্যাপস, ইন্টারনেট ব্যাংকিং অ্যাপস ও মোবাইল ব্যাংকিং সেবা এমক্যাশ বদলে দিয়েছে ব্যাংকটির গ্রাহকদের জীবনধারা। গ্রাহকেরা ব্যাংকে না গিয়েও বিভিন্ন সেবা নিতে পারছেন। এমনকি, হিসাব খোলার জন্য নতুন গ্রাহকদেরও ব্যাংকে যেতে হচ্ছে না, যা করোনাকালে গ্রাহকের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বড় ভূমিকা রাখছে।

ব্যাংকটি বলছে, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে সহায়ক ভূমিকা পালন করছে ব্যাংকিং খাতের ডিজিটাল পণ্য ও সেবা। এতেও নেতৃত্ব দিয়ে আসছে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড (আইবিবিএল)। আজ পরিচিত করে দেওয়া যাক ব্যাংকটির এমন কয়েকটি সেবাপণ্যের সঙ্গে।

ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা প্রথম আলোকে বলেন, ‘এখন ডিজিটাল সেবা ছড়িয়ে দেওয়ার সময়। আমরা এসব সেবা দিতে সব ধরনের প্ল্যাটফর্ম প্রস্তুত করেছি, এখন গ্রাহকদের যুক্ত করতে হবে। ইতিমধ্যে ব্যাংকের ৩০ শতাংশ গ্রাহক এসব সেবায় যুক্ত হয়েছেন। আমরা আশা করি, আরও গ্রাহক দ্রুত এসব সেবায় যুক্ত হবেন, যাতে করে ঘরে বসেই অনেক সেবা নেওয়া যায়।’

সেলফিন

সেলফিন ইসলামী ব্যাংকের একটি আধুনিক ডিজিটাল ব্যাংকিং অ্যাপ। যেকোনো ব্যাংকের হিসাব, কার্ড ও এমক্যাশ নম্বরে সরাসরি টাকা পাঠানো যায় সেলফিন থেকে। টাকা নেওয়া যায় বিকাশ, নগদ ও রকেট হিসাবেও। আর যেকোনো ব্যাংকের ভিসা বা মাস্টারকার্ড, ইসলামী ব্যাংকের সঞ্চয় হিসাব ও এমক্যাশ থেকে টাকা আনা যায় সেলফিনে। এতে রয়েছে ভিসা সুবিধাযুক্ত একটি ভার্চ্যুয়াল ডেবিট কার্ড। সেলফিনের মাধ্যমে যে কেউ নিজেই যেকোনো ধরনের সঞ্চয়ী হিসাব খুলতে পারেন। বিশ্বের যেকোনো দেশ থেকে তাৎক্ষণিক রেমিট্যান্স গ্রহণ করা যায় সেলফিনে। ফ্রিল্যান্সাররাও যেকোনো দেশ থেকে সরাসরি টাকা আনতে পারেন। সেলফিনের হিসাব থেকে কোনো কার্ড ছাড়াই ইসলামী ব্যাংকের এটিএম ও এজেন্ট আউটলেট থেকে টাকা উত্তোলন করা যায়। জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে সেলফিনের মাধ্যমে হিসাব খোলা এখন আপনার হাতের মুঠোয়।

আই-ব্যাংকিং

ইসলামী ব্যাংকের ডিজিটাল সেবা মিলছে আই-ব্যাংকিং বা ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে। এ ছাড়া আইস্মার্ট অ্যাপস থেকেও গ্রাহকেরা এ সেবা নিতে পারেন। এর মাধ্যমে গ্রাহক বিশ্বের যেকোনো প্রান্ত থেকে নিজের হিসাব পরিচালনা করতে পারেন। এর মাধ্যমে যেকোনো ব্যাংকের হিসাবে দিনে পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত তাৎক্ষণিক স্থানান্তর করা যায়। আই-ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ই-কমার্সের কেনাকাটা, মুঠোফোন রিচার্জ, অনলাইনে পরিষেবা বিল দেওয়া যায়।

হোয়াটসঅ্যাপেই মিলছে অনেক সেবা

ইসলামী ব্যাংকের সর্বশেষ সংযোজন হোয়াটসঅ্যাপ সেবা। এর মাধ্যমে গ্রাহকেরা +৮৮০১৩১৩০১৬২৫৯ নম্বরে বিশ্বের যেকোনো স্থান থেকে অনেক সেবা পাচ্ছেন। হিসাবের স্থিতি, মিনি স্টেটমেন্ট, ইসলামী ব্যাংকের প্রতিনিধির সঙ্গে বার্তালাপ (চ্যাটিং), ব্যাংকিং বিষয়ে যেকোনো প্রশ্নোত্তরসহ বিভিন্ন ধরনের ব্যাংকিং সেবা পাওয়া যাচ্ছে এর মাধ্যমে। এ ছাড়া ইসলামী ব্যাংকের ফেসবুক মেসেঞ্জার সাইটেও চ্যাট বটের মাধ্যমে এই সেবাগুলো পাওয়া যাবে।

এমক্যাশ

ইসলামী ব্যাংকের মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) হচ্ছে এমক্যাশ। মুঠোফোন রিচার্জ, ইসলামী ব্যাংক হিসাবের সঙ্গে লেনদেন, টাকা স্থানান্তর, করপোরেট বেতন-ভাতা প্রদান, মার্চেন্ট পেমেন্ট, চুক্তিবদ্ধ স্কুল-কলেজের ফি প্রদান করা যায় এমক্যাশে। এমক্যাশ এজেন্ট, ইসলামী ব্যাংকের এটিএম/সিআরএম, এজেন্ট আউটলেট ও শাখা থেকে এমক্যাশে টাকা ক্যাশ ইন ও ক্যাশ আউট করা যায়।

এর বাইরে ইসলামী ব্যাংকের রয়েছে ডুয়েল কারেন্সি ডেবিট কার্ড। এর মাধ্যমে দেশ-বিদেশের যেকোনো এটিএম থেকে টাকা বা বিদেশি মুদ্রা উত্তোলন করা যায়। ব্যাংকটির আরেকটি সেবা ‘ক্যাশ-বাই-কোড’, যার মাধ্যমে প্রাপক ব্যাংক হিসাব ছাড়াই এটিএম বুথ থেকে টাকা তুলতে পারেন। আই ব্যাংকিং, সেলফিন বা এটিএম মেশিন থেকে ক্যাশ-বাই-কোড ইস্যু করা যায়। সারা দেশে ব্যাংকটির রয়েছে ১৫০০ এটিএম ও ৪ শতাধিক সিআরএম। সিআরএম মেশিনে উত্তোলনের পাশাপাশি তাৎক্ষণিক নগদ টাকা জমাও করা যায়।

এ ছাড়া ব্যাংকটির রয়েছে ‘খিদমাহ’ নামে শরিয়াহসম্মত ক্রেডিট কার্ড। ভ্রমণে বিদেশি মুদ্রা বহনে ঝুঁকি এড়াতে ইসলামী ব্যাংকের রয়েছে ট্রাভেল কার্ড, যাতে আছে ১২ হাজার ডলার পর্যন্ত লেনদেন সুবিধা। আর স্বাচ্ছন্দ্যে হজ পালনের সুবিধা নিয়ে এসেছে ইসলামী ব্যাংকের হজ প্রি–পেইড কার্ড। এতে রয়েছে সৌদি আরবে এটিএম থেকে রিয়াল উত্তোলন ও লেনদেনে বিল পরিশোধের সুবিধা। গ্রাহকদের জন্য ২৪ ঘণ্টা তথ্য ও সরাসরি সহায়তা নিয়ে আছে ইসলামী ব্যাংকের গ্রাহক যোগাযোগ কেন্দ্র। ১৬২৫৯ এবং ‍+৮৮০২৮৩৩১০৯০ এ দুটি নম্বরে ফোন করে বিভিন্ন সেবা ও অভিযোগ দেওয়া যায়।

আরও পড়ুনঃ
– করোনায় অর্থ ব্যবস্থাপনায় ব্যাংকার
– লকডাউনে সীমাহীন ভোগান্তিতে ব্যাংকের কর্মকর্তারা
– লকডাউনে যে নিয়মে চলবে ব্যাংক

Leave a Reply