একজন ব্যাংকারের প্রণোদনা ভাবনা

0

কোভিড-১৯ বা করোনাভাইরাসের মহামারীর মধ্যে অফিস করছি প্রতিদিন অনেকেই জানতে চান যে ছুটির মধ্যে অফিস করলাম, আমাদের প্রাপ্য প্রনোদনা কবে পাবো? এ বছরে কবে ইনসেন্টিভ দেবে বা কয়টা দেবে? আমার খুব অবাক লাগে যে এসব চিন্তা এই সময়ে মাথায় আসে কিভাবে?

বাংলাদেশ ব্যাংকের ইন্টারেস্ট লক করে রাখার সার্কুলার হওয়ার পর যেখানে চিন্তা করা উচিত যে, চাকুরী থাকবে কিনা বা এভাবে চলতে থাকলে সব ব্যাংক তার কর্মকর্তাদের বেতন দিতে পারবে কিনা। নতুবা বেতন আবার কমিয়ে দেয় কিনা। দেশের এই দুঃসময়ে সঠিক সময়ে বেতন ও বোনাস পাচ্ছি এটাইতো অনেক বড় পাওয়া।

প্রনোদনা সার্কুলার হওয়ার পর কর্মকর্তাদের অফিসে উপস্থিতি পর্যালোচনা করে দেখা যাচ্ছে যে, কিছু ব্যাংকের শাখা বা বিভাগে কর্মরত অনেক কর্মকর্তার ১০ দিন করে উপস্থিতি আছে। অনেকের ১০ দিন! কোন কম বা বেশি নেই! হিসাব করে করে সবাই ১০ দিন করে অফিস করেছেন। এটা কতটুকু নৈতিকতা বহন করে?

এটা সঠিক হলেও উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট এগুলো অনেক প্রশ্নের জন্ম দেয়। থার্ড জেনারেশন ব্যাংকগুলোর বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলার মোতাবেক প্রনোদনা বাবদ মাসে প্রায় ৬ কোটি টাকা বা অল্প কিছু কম বা বেশি অর্থ ব্যয় হবে। বর্তমানে এই ব্যয় বহন করার মত সক্ষমতা কি সব ব্যাংকের আছে? অসমর্থিত সূত্রে শোনা যাচ্ছে, কিছু ব্যাংক বেতন কাঠামো নেগেটিভভাবে পরিবর্তন করতে পারে।

এভাবে চিন্তা করলে ব্যাপারটা পরিস্কার হয়ে যাবে। আমার যদি একটা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থাকতো যার বর্তমানে কোন আয় নেই। তাহলে আমার কর্মকর্তাদের সাথে আমি কেমন আচরণ করতাম?

সুতরাং প্রতিষ্ঠানের এই দুঃসময়ে স্বার্থপরের মত আচরণ না করে প্রতিষ্ঠানের পাশে দাড়াই। প্রতিষ্ঠান টিকে থাকলে কর্মকর্তাদের প্রাপ্যতা থেকে বঞ্চিত করবেনা এই আশা আমরা রাখতে পারি। কারন যেখানে অনেক বড় বড় নামকরা দেশি ও বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান এখন বেতন দিতে হিমশিম খাচ্ছে, বোনাস স্থগিত রাখতে যাচ্ছে। কিন্তু কোন ব্যাংক এখনো পর্যন্ত তার কর্মকর্তাদের বেতন দিচ্ছেনা এমনটা শোনা যায়নি।

তাই আসুন সবাই একটু ধৈর্য ধারণ করি। প্রনোদনা প্রনোদনা করে ফেসবুকে ঝড় না তুলে কিভাবে এই দুঃসময় পাড়ি দিয়ে সুসময় আসবে সেই ভাবনা ভাবতে থাকি এবং সবাই সবার জন্য দোয়া করতে থাকি মহান আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে করোনার সংক্রমন থেকে হেফাজত করুক ও আমাদের দেশ স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে পাক।

বিঃদ্রঃ দয়া করে ভুল বুঝবেন না। আমি একটা বেসরকারি ব্যাংকের ছোট পদের অফিসার। আমিও এই সময়ে একাধিক দিন অফিস করেছি।

লেখক: ডালিম হাসান, অফিসার, বেসরকারি ব্যাংক।

Leave a Reply