ব্র্যাক ব্যাংকের ডেবিট কার্ডেই হবে ডলার লেনদেন

দেশে বসে বা বিদেশে গিয়ে কার্ডের মাধ্যমে ডলার খরচ করতে আর ক্রেডিট কার্ডের প্রয়োজন হবে না। ব্র্যাক ব্যাংকের ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে এখন খরচ করা যাবে মার্কিন ডলার। এই কার্ডের মাধ্যমে একজন বাংলাদেশি বছরে ১২ হাজার ডলার পর্যন্ত খরচ করতে পারবেন। দেশে বসে বিদেশের হোটেল বুকিং, নির্দিষ্ট পরিমাণের কেনাকাটাসহ নানা খরচ করতে পারবেন। পাশাপাশি বিদেশে গেলে এই কার্ডেই হবে সব লেনদেন।

👉 বাংলাদেশের গ্রাহকদের মালদ্বীপ ভ্রমণের সুযোগ নিয়ে এলো মাস্টারকার্ড

তবে এই সুবিধা নিতে ডেবিট কার্ড গ্রাহকদের ব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগ করে কার্ডটি হালনাগাদ করে নিতে হবে। আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত বিনা মূল্যে এই সুবিধা দেবে ব্যাংকটি। পাশাপাশি এক হাজার ডলার পর্যন্ত এনডোর্সমেন্টে ব্যাংকটি দিচ্ছে ৫০০ রিওয়ার্ড পয়েন্টস, যা দিয়ে পরে খরচ করা যাবে। ব্র্যাক ব্যাংকের রয়েছে সাড়ে ৫ লাখ ডেবিট কার্ড।

টেকনো ইনফো বিডি‘র প্রিয় পাঠক: প্রযুক্তি, ব্যাংকিং ও চাকরির গুরুত্বপূর্ণ খবরের আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ টেকনো ইনফো বিডি তে লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন।

এই সুবিধা দেশে নতুন নয়, আরও কয়েকটি ব্যাংকের এই সেবা রয়েছে। তবে এখন বড় আকারে এই সেবা দেওয়ার লক্ষ্য স্থির করেছে ব্যাংকটি। যার মাধ্যমে ডেবিট কার্ড দিয়েই আন্তর্জাতিক লেনদেনসহ আন্তর্জাতিক ই-কমার্স সাইট থেকে কেনাকাটা করা যাবে।

👉 স্পর্শবিহীন ডেবিট ও প্রি-পেইড কার্ড চালু করলো ইবিএল

এ নিয়ে ব্র্যাক ব্যাংকের রিটেইল ব্যাংকিং বিভাগের প্রধান মো. মাহীয়ুল ইসলাম বলেন, ‘এখন অনেকেরই ডলারে খরচের প্রয়োজন হয়। এ জন্য বাড়তি ক্রেডিট কার্ড সবার না-ও থাকতে পারে। সবাই ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারও করতে চান না। এ জন্য আমরা এনেছি ডেবিট কার্ডে অন্য মুদ্রায় লেনদেন-সুবিধা। এর ফলে হিসাবে টাকা থাকলে তা ডলারে খরচ করা যাবে। এ জন্য বাড়তি কোনো কার্ড ও অনুমোদনের প্রয়োজন হবে না। এই কার্ডের মাধ্যমে বিদেশে এটিএম ব্যবহার, পয়েন্ট অব সেলস এবং অনলাইনে কেনাকাটা করা যাবে।’

ব্র্যাক ব্যাংক জানায়, সাধারণ ডেবিট কার্ডের মতো এই কার্ড বাংলাদেশের যেকোনো এটিএম বুথ, কেনাকাটা, খাবার হোটেল, পয়েন্ট অব সেলস এবং ই-কমার্স লেনদেনের জন্যও ব্যবহার করা যাবে।

এই সুবিধা পাওয়ার জন্য ব্র্যাক ব্যাংকে সঞ্চয়ী বা চলতি হিসাব থাকতে হবে। যাঁদের ডেবিট কার্ড রয়েছে, তাঁরা ভ্রমণ কোটা বা মেডিকেল কোটা ব্যবহার করে নিকটস্থ ব্র্যাক ব্যাংক শাখা থেকে তাঁদের পাসপোর্ট এনডোর্স করে নিতে হবেন। বর্তমানে একজন বাংলাদেশি ১২ হাজার ডলার পর্যন্ত ভ্রমণ কোটায় খরচ করতে পারেন। তবে ই-কমার্স লেনদেনে একবারে ৩০০ ডলারের বেশি খরচ করা যায় না।

ব্যাংকটি জানায়, বিদেশ ভ্রমণের সময় হোটেল, রেস্তোরাঁ, শপিংয়ে এই ভিসা ডেবিট কার্ডটি ব্যবহার করতে পারবেন। সেই সঙ্গে বিদেশি হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নেওয়া, বিদেশি সফটওয়্যার কেনা কিংবা সোশ্যাল মিডিয়ায় বিজ্ঞাপন প্রচারের কাজেও ব্যবহার করতে পারবেন। আর ডেবিট কার্ড হওয়ায় বিলম্ব জরিমানা (লেট ফি) নিয়েও চিন্তা করতে হবে না।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button