এখনই ব্যাংক বন্ধ না হলে, রাস্তায় রাস্তায় ব্যাংকারদের লাশ পাওয়া যাবে

0

অনেক দিন আমরা ব্যাংকাররা চুপ ছিলাম। আর চুপ থাকা সম্ভব হচ্ছে না।

দেশের এই অবস্থায়, মহামারীর মধ্যে, যেখানে সম্পূর্ণ বাঙালী জাতির আজকে অস্তিত্বের প্রশ্ন, সেখানে আমাদেরকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাইরে যুদ্ধ করতে।

এটাকে যুদ্ধ ছাড়া আর কিছু বলার অবকাশ নেই।
সবকিছু যেখানে বন্ধ, যেখানে রাস্তায় বাস-রিকশা কোনকিছু নাই, যেখানে প্রতি পদে-পদে পুলিশ-আর্মির বাধার সম্মুখীন আমরা হচ্ছি, সেখানে এটাকে প্রহসন ছাড়া আর কিছুই বলার নেই।

প্রত্যেক মানুষের নিজের এবং নিজের পরিবারকে রক্ষার অধিকার আছে। তবে এখন মনে হচ্ছে ব্যাংকাররা মানুষের পর্যায়ে নেই। আমরা ফেরেশতার কাতারে চলে গেছি। যেখানে নিজেদের সুরক্ষার জন্য আমরা PPE ব্যবহার করছিলাম, সেটাও আমাদের কাছ থেকে কেড়ে নেয়া হয়েছে।

আমাদের যার যার ব্যাংকের ম্যানেজমেন্ট আমাদের প্রফেশনাল গার্ডিয়ান এবং সর্বোপরি গার্ডিয়ান হচ্ছে সেন্ট্রাল ব্যাংক বা বাংলাদেশ ব্যাংক। আমাদের জীবন রক্ষার্থে তারা কতটুকু কাজ করছেন এবং কতটুকু নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পেরেছেন, সে জায়গাটা প্রশ্নবিদ্ধ।

দেশের কোন মিডিয়াকে এ পর্যন্ত দেখলাম না দেশের ব্যাংকারদের পক্ষে কোন কথা বলতে। যেন আমাদের জীবনের কোন দাম নেই!

ব্যাংকারদেরও জীবন আছে। আমাদেরও পরিবার আছে। ছেলে-মেয়ে আছে। আমাদেরও ক্ষুধা লাগে। ব্যাথা পেলে আমাদের চোখ দিয়েও পানি পড়ে। আমাদের পরিবারের লোকজনও আমাদের নিয়ে ভয়ে থাকে।

এখন এমন একটা অবস্থায় আমরা আছি যা আমরা ইতিপূর্বে কখনো দেখিনি। জ্যামিতিক হারে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। এতদিন আমরা প্রশ্ন না করে সেবা দিয়ে গেলেও এখন পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে গেছে।

কোন দৃষ্টি আকর্ষণ নয়। কোন আবেদন নয়। কোন অনুরোধ নয়। ব্যাংকারদের জীবনের স্বার্থে এইমূহুর্তে বাংলাদেশের সকল ব্যাংক বন্ধ করে দেয়া হোক। তার সাথে আমাদের বেতন এই বন্ধের সময় নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে চলতে থাকবে এটা নিশ্চিত করা হোক, যাতে আগত দুই-তিন মাসের কঠিন সময়টা আমরা পরিবারের সাথে টিকে থাকবো, এটা নিশ্চিত করতে পারি। অনেকেই কর্মক্ষেত্রে যোগ দিতে পারছেন না, এই নাজুক সময়ে, কোন ব্যাংকেই কোন ব্যাংকার ছাঁটাই বা শাস্তিগত কোন পরিস্থিতির সম্মুখীন হবে না এটা নিশ্চিত করা হোক।

ব্যাংকার দিয়েই তো ব্যাংক চলে। যদি ব্যাংকার না থাকে তাহলে ব্যাংকের সুদৃশ্য ইমারত একটা খালি দালান ছাড়া কিছুই নয়। ব্যাংকারদের এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের জীবনের স্বার্থে সকল সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করে বাংলাদেশের সকল ব্যাংক আপাতত বন্ধ করে দেয়া হোক।

নয়তো অচিরেই হয়তো দেখতে হবে বাংলাদেশের ব্যাংকারদের বড় একটা অংশ সংক্রামিত এবং তাদের দ্বারা তাদের পরিবারও সংক্রমনের ঝুঁকিতে পড়বে। তাদের রক্তের দাগ আজীবন লেগে থাকবে ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট এবং সেন্ট্রাল ব্যাংকের হাতে।

এই মূহুর্তে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। নয়তো সেদিন দূরে নয় যখন দেশের রাস্তায় রাস্তায় ব্যাংকার মরে পড়ে থাকবে।

লেখক: বিশিষ্ট ব্যাংকার পিয়াস মাহবুব খান, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড।