ব্যাংকার কি কর্মচারী না জনসেবক? আত্মপরিচয় জানা আবশ্যক

0

প্রশ্ন হচ্ছে, ব্যাংকাররা কি প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী?
উত্তর হচ্ছে, ব্যাংকাররা প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী নয়। প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীরা “সরকারী কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা, ১৯৭৯”, “সরকারী কর্মচারী(শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ২০১৮”, The Public Employees Discipline (Punctual Attendance) Ordinance, 1982” দ্বারা পরিচালিত হয়।

প্রিয় পাঠক, ব্যাংকিং ও অর্থনীতি বিষয়ে আপনাদের অপ্রকাশিত লেখা ‘ব্যাংক বার্তা’য় প্রকাশের জন্য আমাদের ই-মেইল করতে পারেন- [email protected]। আমরা আপনাদের পাঠানো লেখার বস্তুনিষ্ঠতা ও গ্রহণযোগ্যতা যাচাই করে প্রকাশ করবো ইনশাআল্লাহ।

কিন্তু ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা স্ব-স্ব ব্যাংকের চাকুরী প্রবিধানমালা দ্বারা পরিচালিত হয়। তবে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো এসব সরকারী বিধিমালার সাথে সামঞ্জস্য বজায় রেখে তাদের প্রবিধানগুলো তৈরি করে বিধায় রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী নিজেদেরকে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী ভেবে থাকেন যা অতিভ্রম-বিলাসীতা ছাড়া আর কিছুই নয়।

যারা প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী তাদের বেতন হয় রাষ্ট্রের রাজস্ব খাত থেকে, অন্যদিকে ব্যাংকের বেতন হয় স্ব-স্ব ব্যাংকের নিজস্ব তহবিল হতে।

তবে ব্যাংকাররা প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী না হলেও “ব্যাংক কোম্পানী আইন-১৯৯১” এর ১১০ নং অনুচ্ছেদে ব্যাংকারদেরকে Public Servant বা জনসেবক হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। এক্ষেত্রে Penal Code-1860 এর Section-21 এ যে অর্থে জনসেবক (Public Servant) কথাটি ব্যবহৃত হয়েছে ঠিক সেই অর্থটি ব্যাংক কোম্পানী আইনে গ্রহন করা হয়েছে। এ দৃষ্টিকোণ থেকে রাষ্ট্রায়ত্ত ও বেসরকারী উভয় প্রকার ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জনসেবক হিসেবে বিবেচিত হবেন।

আরো সুস্পষ্টভাবে বোঝার জন্য “প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী (Servant of the Republic)” ও “জনসেবক (Public Servant)” শব্দ দুটির মধ্যে আইনগত সংজ্ঞাবাচক পার্থক্য জানা প্রয়োজন। আর এই দুটি বিষয় সুস্পষ্ট করা আছে “Penal Code-1860” এর দুটি অনুচ্ছেদে। Penal Code-1860 এর ১৪নং অনুচ্ছেদে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীর সংজ্ঞায় বলা আছে-
The words [Servant of the Republic] denote all officers or servant, continued, appointed or employed in Bangladesh by or under the authority of the Government.
অর্থাৎ যারা সরাসরি সরকারের অধীনে নিয়োগ পাবে তারাই কেবল প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসেবে বিবেচিত।

আর জনসেবক বা Public Servant এর সংজ্ঞা দেয়া আছে Penal Code-1860 এর ২১ নং অনুচ্ছেদ। এই অনুচ্ছেদটি শুরু হয় এভাবে-
“The words (public servant) denote a person falling under any of the descriptions hereinafter following, namely:- এই কথা বলার পর ১৩টি ক্যাটাগরির পদস্থ ব্যক্তিবর্গের কথা উল্লেখ করা হয় যাদেরকে জনসেবক হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। এই অনুচ্ছেদটি বড় বিধায় এখানে তা সংযুক্ত করলাম না, তবে প্রথম কমেন্টে এই অনুচ্ছেদটি পুরোপুরি উল্লেখ করা হল।

আইনগত বিষয় পর্যালোচনা করলে ব্যাংকাররা কোনভাবেই প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসেবে বিবেচনা করা যায় না। সর্বোপরি, প্রজাতন্ত্রের সকল কর্মচারীই জনগণের সেবক, কিন্তু সকল জনসেবকই প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী নয়।

Context of this Post: অতি সম্প্রতি সরকার সদাশয় “সরকারি প্রতিষ্ঠানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার সংক্রান্ত নির্দেশিকা, ২০১৯ (পরিমার্জিত সংস্করণ)” যথাযথভাবে অনুসরণ করার জন্য সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্দ্যেশ্যে একটি পরিপত্র জারি করেছে। আর এই পরিপত্রকে বিবেচনায় নিয়ে অনেক সরকারী কর্মকর্তা ফেসবুকে একটি পোস্ট গণহারে প্রসব করা শুরু করেছে। সেই পোস্টের সারমর্ম হচ্ছে- “আমি প্রজাতন্ত্রের একজন কর্মচারী। রাষ্ট্রের নিয়ম বা আইন-কানুন মেনে চলা আমার কর্তব্য। তাই আমার কোন পোস্টে রাষ্ট্র বা সরকারবিরোধী কমেন্ট না করা, রাষ্ট্র বা সরকারবিরোধী কোন পোস্টে ট্যাগ না করা বা কোন গ্রুপে যেন এড না করা হয়”। সরকারী কর্মকর্তাদের এই ট্রেন্ডি পোস্টে ব্যাংকারাও যুক্ত হয়েছে দেখলাম এবং তারাও নিজেদেরকে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসেবে আখ্যায়িত করছে দেখে কিঞ্চিৎ অভিভূত হলাম। তাই এই পোস্ট দেয়ার প্রয়োজনীয়তা বোধ করলাম।

লেখক: শেখ আব্দুল্লাহ-আল-নকী, সিনিয়র অফিসার, রাকাব, মুজিব সড়ক, সিরাজগঞ্জ।

Leave a Reply