অপরাধ

ব্যাংক-আর্থিক খাত নিয়ে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে গ্রেপ্তার ৫

সম্প্রতি এস আলম গ্রুপের মালিকানাধীন ইসলামী ব্যাংকসহ অন্যান্য ব্যাংক ও আর্থিক খাত নিয়ে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ডিএমপির গোয়েন্দা সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম (উত্তর) বিভাগ। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে গতকাল তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

টেকনো ইনফো বিডি‘র প্রিয় পাঠক: প্রযুক্তি, ব্যাংকিং ও চাকরির গুরুত্বপূর্ণ খবরের আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ টেকনো ইনফো বিডি তে লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন।

সোমবার রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান ডিবির প্রধান হারুন অর রশীদ। গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছেন- মোহাম্মদ নুর উন নবী, মো. আফসার উদ্দিন রোমান, মো. আবু সাইদ সাজু, মো. স্বাধীন মিয়া ও মো. আব্দুস সালাম। গ্রেপ্তার ৫ জনের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় মামলা করা হয়েছে।

ডিবি প্রধান বলেন, ‘কতিপয় ব্যক্তি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে মনগড়া মিথ্যা তথ্য প্রচার করে দেশের আর্থিক খাতকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। সম্প্রতি ডিএমপি ঢাকার ডিবি সাইবার মনিটরিং টিমের নজরে বিষয়টি আসে। এ নিয়ে অধিকতর তদন্ত করে দেখা যায়, গ্রেপ্তারকৃতরাসহ অজ্ঞাত ব্যক্তিরা দেশে ও দেশের বাহিরে অবস্থানরত স্বাধীনতা বিরোধী ষড়যন্ত্রকারীদের সহযোগিতায় দেশের আর্থিক খাত সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নামে মনগড়া তথ্য উপাত্ত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচারসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রচার করছেন।’

আরও দেখুন:
গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের প্রেক্ষিতে ইসলামী ব্যাংকের বক্তব্য
বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে তারল্য সহায়তা গ্রহণের বিষয়ে ইসলামী ব্যাংকের বক্তব্য
বিদায়ী বছরে ব্যাংকের পরিচালন মুনাফা বেড়েছে, শীর্ষে ইসলামী ব্যাংক

তিনি বলেন, ‘ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড বাংলাদেশের একটি স্বনামধন্য ব্যাংক। দেশ বিরোধী চক্র সাধারণ মানুষের মাঝে ব্যাংকিং খাত নিয়ে আস্থার সংকট তৈরি করার চেষ্টা করছিল। এই চক্রের মূল উদ্দেশ্য, দেশের আর্থিক খাতকে অস্থিতিশীল করে সরকারকে বেকায়দায় ফেলা। গ্রেপ্তারকৃতরা এস আলম গ্রুপসহ স্বনামধন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যানদের নামে ব্যাংকিং সংক্রান্ত মিথ্যা অপপ্রচার ও গুজব চালিয়ে আসছে। তারা প্রবাসীদের রেমিট্যান্স না পাঠানোর বিষয়েও প্রচারণা চালিয়ে আসছিলেন। ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে যাবে, ব্যাংকে টাকা নেইসহ নানাবিধ গুজব রটানোর কাজে তারা জড়িত’।

সম্প্রতি এস আলম গ্রুপের ঋণ উত্তোলন নিয়ে গণমাধ্যমে একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশের পর ঢাকা ও চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্থানে এস আলম গ্রুপের বিরুদ্ধে পোস্টার লাগানো হয়েছে। পোস্টারে উল্লেখ করা হয়েছে, এস আলম গ্রুপের মালিকরা ব্যাংক লুটেরা; অনুগ্রহ করে ৭টি ব্যাংক ও দেশের জনগণকে এই ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে বাঁচান।

ডিবি প্রধান বলেন, এই পোস্টার লাগানোর পেছনে গ্রেপ্তারকৃতরা ও বিদেশে অবস্থানরত কয়েকজনের হাত রয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, গ্রেপ্তারকৃতরা ইসলামী ব্যাংকসহ বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান নিয়ে বিভিন্ন নেতিবাচক প্রচারণায় জড়িত ছিলেন। ঘটনায় জড়িত অন্যান্য আসামিদের গ্রেপ্তারে ডিবি অভিযান চালাচ্ছে।

Leave a Reply

Back to top button