Monday, January 17, 2022

এজেন্ট ব্যাংকিং সম্পর্কে বাংলাদেশ ব্যাংকের গাইডলাইন

জনপ্রিয় পোস্ট

বর্তমান সময়ে এজেন্ট ব্যাংকিং ধারণা ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। তাই যারা এজেন্ট ব্যাংকিং সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাদের জন্য আমাদের আজকের আয়োজন।

এজেন্ট ব্যাংকিং কি?
এজেন্ট ব্যাংকিং হলো একটি বৈধ এজেন্সি চুক্তির অধীনে এজেন্টদের নিয়োগ দানের মাধ্যমে জনগণ এবং গ্রাহকদের সীমিত স্কেলে ব্যাংকিং এবং আর্থিক সেবা প্রদান।

এজেন্ট ব্যাংকিং এর সংজ্ঞায় বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে-
“Agent Banking means providing limited scale banking and financial services to the underserved population through engaged agents under a valid agency agreement, rather than a teller/ cashier. It is the owner of an outlet who conducts banking transactions on behalf of a bank”.

অর্থাৎ- “এজেন্ট ব্যাংকিং এর অর্থ হল টেলার বা ক্যাশিয়ারের পরিবর্তে কোন সংস্থার সাথে বৈধ চুক্তির অধীনে সীমিত স্কেলে ব্যাংকিং ও আর্থিক পরিষেবাগুলো এজেন্টের মাধ্যমে জনসাধারণের কাছে প্রদান করা। এটি একটি ব্যাংকের পক্ষে ব্যাংকের লেনদেন পরিচালনা করে এমন একটি আউটলেটের মালিক”।

এজেন্ট ব্যাংকিং এর সেবাসমূহ:
শাখা নেই এমন অঞ্চলে ব্যাংকিং সেবা দিতে এজেন্ট ব্যাংকিং চালু করা হচ্ছে। এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে গ্রাহকরা বিভিন্ন ধরনের হিসাব খোলা, ক্ষুদ্র ও কৃষিঋণ নিতে ও কিস্তি সংগ্রহ, নগদ জমা ও উত্তোলন করতে পারবেন।

এ ছাড়া বিদেশ থেকে আসা রেমিট্যান্সের অর্থ প্রদান, ইউটিলিটি বিল পরিশোধ, ব্যাংকের যে কোনো অ্যাকাউন্টে তহবিল স্থানান্তর, ইএফটিএনের মাধ্যমে অন্য ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে তহবিল স্থানান্তর, অ্যাকাউন্ট ব্যালান্স জানা, ইন্টারনেট ব্যাংকিংসহ যে কোনো ধরনের ব্যাংকিং সেবা নেওয়া যাবে।

বিশ্বব্যাপী এজেন্ট ব্যাংকিংকে একটি আর্থিক অন্তর্ভুক্তির জন্য খুচরা ব্যাংকিং হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ চ্যানেল হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকও এই চ্যানেলকে সমাজের নিম্ন আয়ের মানুষের কাছে পৌঁছানোর পাশাপাশি বর্তমান ব্যাংক গ্রাহককে বিশেষ করে ভৌগোলিকভাবে বিচ্ছিন্ন স্থানে আর্থিক সেবা প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এজেন্ট ব্যাংকিং এর নির্দেশিকা:
প্রস্তাবিত এই চ্যানেলের নিরাপত্তা এবং সুদৃঢ়তা নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক এজেন্ট ব্যাংকিং নির্দেশিকা বা গাইডলাইন তৈরি করা হয়েছে যাতে ব্যাংকগুলো এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের সাথে জড়িত হতে পারে।
এই নির্দেশিকায় যে বিষয়গুলো উল্লেখ করা হয়েছে তা মূলত নিম্নোক্ত বিষয়গুলোকে সম্পৃক্ত করেঃ

১) এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের জন্য নিয়ন্ত্রক কাঠামো তৈরি করা হবে যা নতুন টার্গেট গ্রুপকে নিরাপদ আর্থিক সেবা প্রদানের জন্য সক্রিয় পরিবেশ তৈরি করবে।

২) বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক জারি করা এএমএল/ সিএফটি রুলস, রেগুলেশন্স, নির্দেশিকা ও নির্দেশাবলী দ্বারা নির্ধারিত অ্যান্টি-মানি লন্ডারিং এবং সন্ত্রাসবিরোধী আর্থিক সহায়তা (এএমএল/ সিএফটি) মানদণ্ডের সাথে পরিপালন নিশ্চিতকরণ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের Agent Banking এর নীতিমালা বা গাইডলাইনটি আপনাদের সুবিধার জন্য দেয়া হলো। PDF ফাইলটি ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে

সূত্রঃ বাংলাদেশ ব্যাংক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ পোস্ট

দুই জেলায় অফিসার নিয়োগ দেবে সিটি ব্যাংক

দেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় বাণিজ্যিক ব্যাংক দি সিটি ব্যাংক লিমিটেড সম্প্রতি নতুন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। প্রতিষ্ঠানটিতে অফিসার (টেম্পোরারি)- কালেকশন...

এ সম্পর্কিত আরও