আইফোন ও আইপ্যাডের নতুন ৮ ফিচার!

0
197

আগামী ৩ জুন শুরু হচ্ছে প্রযুক্তি কোম্পানি অ্যাপলের ওয়ার্ল্ডওয়াইড ডেভেলপার কনফারেন্স (ডব্লিউডব্লিউডিসি)-২০১৯। এরই মধ্যে বার্ষিক ডেভেলপার সম্মেলনের আমন্ত্রণপত্র পাঠাতে শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি। প্রতি বছরের মতো এবারো নিজেদের বিভিন্ন ডিভাইসের জন্য অপারেটিং সিস্টেমের নতুন সংস্করণের ঘোষণা দেবে অ্যাপল। এর ফলে আইফোন ও আইপ্যাডে দেখা যেতে পারে, এমন আটটি নতুন ফিচার নিয়ে আমাদের আয়োজন।

ডার্ক মোডঃ

ডিভাইস ব্যবহারকারীদের চোখের নিরাপত্তা এবং হ্যান্ডসেট ডিভাইসে অনলাইন কনটেন্ট পড়া সহজ করতে বিভিন্ন সেবা ও অ্যাপে ডার্ক মোড বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। অ্যান্ড্রয়েড প্লাটফরমের অনেক সেবাতেই এখন ডার্ক মোড ফিচার আনা হয়েছে। গ্রাহক চাহিদার কথা বিবেচনায় নিয়ে অ্যাপল তাদের জনপ্রিয় আইফোন ও আইপ্যাড ডিভাইসে ফিচারটি আনতে যাচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, অ্যাপলের নতুন আইওএস-চালিত আইফোন এবং আইপ্যাডে ফিচারটি মিলতে পারে।

উন্নত ইন্টিগ্রেশনঃ

অ্যাপলের বিভিন্ন ডিভাইসের অপারেটিং সিস্টেমের মধ্যে অ্যাপ ইন্টিগ্রেশন আরো উন্নত করা হয়েছে। এর ফলে আইফোনের অনেক ফিচার এখন প্রতিষ্ঠানটির ম্যাকবুক ল্যাপটপে দেখা যাবে। ডেভেলপার সম্মেলনের আমন্ত্রণপত্রে এমন ইঙ্গিত দিয়েছে অ্যাপল। শুধু তাই নয়, এ ফিচারগুলোর আইকনসহ আমন্ত্রণপত্র ছাপানো হয়েছে। অ্যাপল অবশ্য আগেই ঘোষণা দিয়েছিল যে তারা বিভিন্ন ডিভাইসের অ্যাপ ইন্টিগ্রেশন আরো উন্নত করতে কাজ করছে। অ্যাপ ইন্টিগ্রেশন উন্নত করার ফলে একই অ্যাপ বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেম চালিত ডিভাইসে ব্যবহারের সুবিধা মিলবে, যা আইওএস প্লাটফরমের ডেভেলপারদের অ্যাপ উন্নয়ন আরো সহজ করবে।

উন্নত ফাইল শেয়ারিংঃ

অ্যাপলের নতুন অপারেটিং সিস্টেমগুলোয় নিজেদের ডিভাইসের মধ্যে ফাইল শেয়ারিংয়ে আরো উন্নত সেবা মিলবে। তবে এ ধরনের একটি ফিচার এরই মধ্যে অ্যাপল ডিভাইসে রয়েছে। মোবাইল ডিভাইস এখন তথ্যের অন্যতম উৎস হয়ে উঠেছে। অনেক গুরুত্বপূর্ণ ফাইল আদান-প্রদান হচ্ছে মোবাইল ডিভাইসের মাধ্যমে। যে কারণে অ্যাপল ব্র্যান্ডের ডিভাইস ব্যবহারকারীদের নিজেদের মধ্যে ফাইল শেয়ারিং আরো সহজ করতে ফিচার উন্নত করেছে অ্যাপল।

কমবাইন্ড মিউজিক ও আইটিউনস অ্যাপঃ

আইওএস ও ম্যাকওএস থেকে এককভাবে আইটিউনস অ্যাপ হারিয়ে যেতে পারে। এর পরিবর্তে সমন্বিত মিউজিক ও আইটিউনস অ্যাপ দেখা যেতে পারে। অনলাইন মিউজিক ও আইটিউনস অ্যাপের কার্যকারিতা অনেকটা একই হওয়ায় এ দুই সেবাকে দীর্ঘদিন ধরেই এক ছাদের নিচে আনতে জোর দিয়ে আসছিল অ্যাপল।

গেমিং ও অ্যাপল আর্কেডঃ

মোবাইল ডিভাইসে গেম খেলার প্রবণতা বেড়েছে। তরুণ স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা মোবাইল ডিভাইসে গেম খেলে অনেক সময় পার করছেন। অ্যাপল তাদের বার্ষিক ডেভেলপার সম্মেলনে আইফোন ও আইপ্যাড ডিভাইসের গেমিং ফিচারে গুরুত্ব আরোপের বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবে বলে মনে করা হচ্ছে। বাস্তবে এমন হলে অ্যাপল ব্র্যান্ডের মোবাইল ডিভাইসে গেমিং সুবিধা আগের চেয়ে আরো বাড়বে। আইওএস ১৩-এর মাধ্যমে আইফোন এবং আইপ্যাড ডিভাইসে গেমিংয়ের নতুন অভিজ্ঞতা যোগ করা হবে।

নতুন ইমোজি সংযোজনঃ

প্রিয়জনের সঙ্গে চ্যাটিং করা, বিভিন্ন সোস্যাল মিডিয়ায় কোনো বিষয়ে পোস্ট দেয়া কিংবা মন্তব্য করার ক্ষেত্রে ইমোজি ব্যাপক পরিসরে ব্যবহার হচ্ছে। অ্যাপল আইফোনের দশকপূর্তি সংস্করণ দিয়ে একধাপ এগিয়ে গ্রাহকদের জন্য এনেছে অ্যানিমোজি ফিচার। এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটির ফেসিয়াল রিকগনিশন সফটওয়্যার ব্যবহার করে যেকোনো চেহারাকে অ্যানিমেটেড ইমোজিতে রূপান্তর করা যায়। আইফোন ও আইপ্যাড ডিভাইস ব্যবহারকারীদের জন্য আইওএসের নতুন সংস্করণ দিয়ে অ্যানিমোজি ফিচার আরো সমৃদ্ধ করা হয়েছে।

উন্নত মেসেজিংঃ

গ্রাহকদের আরো উন্নত মেসেজিং সুবিধা দিতে আইফোন ও আইপ্যাডের সংশ্লিষ্ট ফিচার ঢেলে সাজানো হতে পারে। মেসেজিংয়ে আসতে পারে হোয়াটসঅ্যাপের মতো কিছু জনপ্রিয় ফিচার। আইওএস ১৩-এর মাধ্যমে আইফোন ও আইপ্যাডের মেসেজিং ফিচার ঢেলে সাজানো হবে। এর ফলে মিলবে বেশকিছু নতুন ফিচার। বার্ষিক ডেভেলপার সম্মেলনের আমন্ত্রণপত্রে নতুন মেসেজিং ফিচার বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। ঢেলে সাজানো হতে পারে আইমেসেজ অ্যাপটিকেও।

অগমেন্টেড রিয়েলিটি অ্যাপঃ

আইওএস ১৩-এর মাধ্যমে অগমেন্টেড রিয়েলিটি (এআর) অ্যাপে গুরুত্ব আরোপ করবে অ্যাপল। টানা কয়েক বছর ধরেই এআর প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে অ্যাপল। প্রতিষ্ঠানটির বিশ্বাস ভবিষ্যতে এআর প্রযুক্তি বৈশ্বিক প্রযুক্তি খাতে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে। চলতি বছর বার্ষিক ডেভেলপার সম্মেলনে অ্যাপলের এআর প্রযুক্তি নিয়ে কাজের বিস্তারিত ঘোষণা আসতে পারে। অগমেন্টেড রিয়েলিটি মানুষের অনেক কাজ সহজ করবে বলে মনে করা হয়। যে কারণে শীর্ষস্থানীয় সব প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এ প্রযুক্তি উন্নয়নে কাজ করছে।

সূত্র:টাইমস অব ইন্ডিয়া এবং বনিক বার্তা।

Leave a Reply