Saturday, August 18, 2018
হোম এক্সক্লুসিভ পুলিশের কাজের ধারা পাল্টে দিচ্ছে ড্যাটা সফটওয়্যার

পুলিশের কাজের ধারা পাল্টে দিচ্ছে ড্যাটা সফটওয়্যার

0

টেকনো ইনফোঃ পালান্টির নামে সিলিকন ভ্যালির একটি সফটওয়্যার ফার্ম সেই ২০১১ সাল থেকে লসএ্যাঞ্জেলেসের পুলিশ বিভাগকে লাইসেন্স প্লেটের ফটো থেকে শুরু করে র‌্যাপশীট, ট্রাফিক টিকেট এবং আরও অন্য কিছুসহ বিভিন্ন ড্যাটা বিশ্লেষণে সহায়তা করে আসছে। প্রতিষ্ঠানটি সিআইএ ও এফবিআইএর মতো সরকারী সংস্থার সঙ্গেও কাজ করে থাকে। এটি পুলিশের কাজের পদ্ধতিকে নীরবে নিঃশব্দে রূপান্তরিত করে দিচ্ছে এবং তা সহজ করে ফেলছে। কতজন ক্লায়েন্ট এই সফটওয়্যার ব্যবহার করছে পালান্টির তা প্রকাশ করে না। তবে ক্যালিফোর্নিয়া ও নিউইয়র্কের পুলিশ বিভাগ ইতোপূর্বে এই কোম্পানির সঙ্গে কাজ করেছে।

সারা ব্রাইন নামে টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানের অধ্যাপক এই নতুন প্রযুক্তির ব্যবহারকারী শতাধিক অফিসার ও সিভিলিয়ান কর্মচারীদের সাক্ষাতকার নিয়েছেন এবং ডিটেকটিভদের প্রশ্নের জবাব ড্যাটা এনালিস্টরা কিভাবে নিয়েছে তা পর্যবেক্ষণ করেছেন। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন ব্রাইনের গবেষণা কর্ম থেকে ভবিষ্যত আইন প্রয়োগের চেহারাটা দেখতে পাওয়া যাবে। তার গবেষণায় দেখা যায় বড় বড় ড্যাটা পুলিশের কাজকে আরও দক্ষ করে তোলার সম্ভাবনা ধারণ করে আছে। তবে এর ক্ষতিকর দিকও আছে। দেখা গেছে যে ড্যাটা সাধারণভাবে বস্তুনিষ্ঠ ও ন্যায়সঙ্গত মনে করা হলেও তা পক্ষপাতিত্ব বাড়িয়ে তুলতে পারে।

ব্রাইনের গবেষণাকর্ম থেকে সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ যে ছয়টি ফলাফল পাওয়া গেছে তা হলো :

আজকের নজরদারি নজিরবিহীন

ফেসবুক যেমন বন্ধুদের সন্ধান করার পথ সহজ করে তুলেছে তেমনি পালান্টির সম্ভাব্য অপরাধীদের খোঁজখবর রাখতে পুলিশের কাজ সহজতর করেছে। এর প্লাটফর্ম সোশ্যাল নেটওয়ার্কের অনুরূপ। ব্যক্তির নাম, লিঙ্গ, কোন্ স্কুলে লেখাপড়া করেছে এই মৌলিক তথ্যগুলো। অফিসাররা কখনও কখনও যেমন ধরুন ট্রাফিক দুর্ঘটনার পর রাস্তায় নাগরিকদের থামিয়ে এই তথ্যগুলো নোটকার্ডে রেকর্ড করে রাখে। শুধু সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির নয়, সে সময় তার বা তাদের সঙ্গে থাকা লোকদের তথ্যও সংগ্রহ করা হয়। অতিরিক্ত তথ্য পাওয়া যায় সরকারী সংস্থাগুলো থেকে। একবার কোন ব্যক্তি এই ব্যবস্থার মধ্যে এসে গেলে অফিসাররা তাদের স্মার্টফোনে অটোমেটেড এ্যালার্ট পেতে পারে। যেমন ধরুন, কোন ব্যক্তির গাড়ি নির্দিষ্ট মহল্লায় ঢুকছে দেখা গেলে একটি সঙ্কেত বেজে উঠবে। লসএ্যাঞ্জেলেসের পুলিশ বিভাগের গাড়িগুলোতে এবং পালান্টির ব্যবস্থায় থাকা রাস্তাগুলোতে ইন্টিগ্রেটেড ক্যামেরা বসানো আছে। ক্যামেরাগুলো লাইসেন্স প্লেটের ছবি তুলে রাখে এবং সময় ও স্থানের উল্লেখ করে সিস্টেমের ভেতরে পাঠিয়ে দেয়। কোন্ সন্দেহভাজন ব্যাংক ডাকাতের গাড়ি কোন্ নির্দিষ্ট ব্যাংকের কাছাকাছি যাচ্ছে এমন দৃশ্য ক্যামেরায় ধরা পড়লে পুলিশ অফিসার এ্যালার্ট সিগন্যাল পেতে পারেন।

পুলিশ কনট্যাক্ট ছাড়াই ট্র্যাক করা

ব্রাইন লক্ষ্য করেছেন যে লসএ্যাঞ্জেলেসের ড্যাটাবেসগুলোর মধ্যে এমন ব্যক্তিরা আছেন যাদের পুলিশের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ নেই। যেমন, যে ব্যক্তিটির ব্যাপারে আগ্রহ আছে তার সঙ্গে শুধু একটা যোগসূত্র থাকলেই তার নাম নগরীর পালান্টির ব্যবস্থায় অন্তর্ভুক্ত হওয়ার জন্য যথেষ্ট। পালান্টির-এ ‘প্রেমিক’ ক্যাটিগরিও আছে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির সঙ্গে রোমান্টিক সম্পর্কও তাকে ড্যাটাবেসে অন্তর্ভুক্ত করতে পারে। তার নাম একবার তালিকাভুক্ত হয়ে গেলে অফিসাররা তার সম্পর্কে এ্যালার্ট পেতে পারেন। ব্রাইন সিএনএন টেকের কাছে বলেন, ‘আমি এই ভাবনার ব্যাপারে সতর্ক করে দেব যে কোন কিছু লুকানোর না থাকলে আপনার ভয় পাবার কিছুই নেই।’

ড্যাটা শেয়ারিং পুলিশের সহায়ক

লসএ্যাঞ্জেলেসের পুলিশ বিভাগের আওতাভুক্ত এলাকা বিশাল-৫শ’ বর্গমাইল অর্থাৎ ২২টি ম্যানহাটানের সমান। একটা থেকে আরেকটা দূরে দূরে সংঘটিত অথচ পরস্পর সম্পর্কিত অপরাধগুলোর মধ্যে একের সঙ্গে অন্যটির যোগসূত্র নাও থাকতে পারে। কিন্তু পালান্টির ব্যবস্থায় এই যোগসূত্রগুলো দেখতে পাওয়া ডিটেকটিভদের পক্ষে সহজতর। একজন অফিসার ‘মারিজুয়ানা, ডাকাতি, পুরুষ, ৫ ফুট ১১ ইঞ্চি’ ইত্যাকার কিওয়ার্ডগুলো দিয়ে একটা নির্দিষ্ট ধরনের অপরাধ সম্পর্কে একজন অফিসার এ্যালার্ট সাইনআপ করতে পারেন। পালান্টির এর ড্যাটা অভিযান পরিকল্পনায়ও সুফল দিতে পারে। পুলিশ কোন বাড়িতে তল্লাশি চালাতে গেলে তারা প্রয়োজনীয় ড্যাটার জন্য পালান্টিরে সার্চ করতে পারে। পাশের বাড়িতে রেজিস্ট্রি করা একটা বন্দুক সম্পর্কে, কিংবা ওই ব্লকে থাকা একটা অপরাধী চক্র সম্পর্কে কিংবা নিকটবর্তী কোন অপরাধীর জন্য ইস্যু করা ওয়ারেন্ট সম্পর্কে অফিসারদের হুঁশিয়ার করে দেয়া হতে পারে। ব্রাইন অফিসাররা কিভাবে একটি নির্দিষ্ট বস্তু বা নির্ণয়ের ওপর ফোকাস করতে পারে তার একটা দৃষ্টান্ত দিয়েছেন। একটা গাড়ি তামার তার চুরির একটা সিরিজ ঘটনায় জড়িত ছিল। সে সব জায়গায় তার চুরি হয়েছিল অফিসাররা তার কাছাকাছি তোলা গাড়ির লাইসেন্স প্লেটগুলো সন্ধান করতে থাকেন। তাতে করে তারা তিনটি জায়গার সবই উপস্থিত গাড়িগুলোর তালিকা পেয়ে যায়।

সবার পছন্দ নয়

বিগ ড্যাটা সিস্টেমভিত্তিক নজরদারির এই নতুন হাতিয়ার সব অফিসারই যে পছন্দ করেন তা নয়। ব্রাইন লক্ষ্য করেছেন যে লসএ্যাঞ্জেলেসের পুলিশ বিভাগের সাড়ে ১২ হাজারেরও বেশি কর্মচারীর বিগ ড্যাটা সিস্টেম সম্পর্কে ভিন্ন ভিন্ন মত আছে। লসএ্যাঞ্জেলেস পুলিশের সমস্ত বিভাগই যে পালান্টির ব্যবহার করছে তা নয়। ব্যাপারটি অনেকের জানা নেই। অন্যরা এ সম্পর্কে সতর্ক। এ জাতীয় নজরদারির আবির্ভাবের অর্থ পুলিশের কর্মকা-ও লক্ষ্য করা যেতে পারে যা আগে কখনও হয়নি। পাঁচ সেকেন্ড পর পর পুলিশের গাড়ির অবস্থান জানিয়ে দেয়া হচ্ছে এটা পুলিশ ইউনিয়নের পছন্দ নয়।

অসাম্য তৈরি করে

পালান্টিরের বিগ ড্যাটা অসাম্য তৈরিতে ভূমিকা রাখে। নিম্ন আয়ের সংখ্যালঘু এলাকার ব্যক্তিদের বেলায় পুলিশের ‘ঝুঁকি’ পরিমাপের সম্ভাবনা বেশি থাকে। ২০১১ সালে লসএ্যাঞ্জেলেসের পুলিশ পুরনো অপরাধীদের এলাকা বলে চিহ্নিত একটি মহল্লায় একটি কর্মসূচী শুরু করে। কর্মসূচীতে এই শ্রেণীর লোকদের একটা পয়েন্ট ভ্যালু ও র‌্যাঙ্কিং দেয়া হয়। মারাত্মক ধরনের অপরাধের ইতিহাস আছে, গ্যাংয়ের সঙ্গে সংশ্রবের বন্দুকসহ আগে গ্রেফতার হওয়ার কিংবা প্যারোলে বা প্রোবেশনে থাকার রেকর্ড আছে এমন ব্যক্তিদের পয়েন্ট দেয়া হতো। প্রতিবার একজন অফিসার তালিকাভুক্ত কোন ব্যক্তিকে থামালে তাদের স্কোরের সঙ্গে একটা পয়েন্টে যোগ করা হতো। সমস্যা হচ্ছে এসব ড্যাটা কোন ব্যক্তি সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণা তৈরি করে দিত যদিও সেই ব্যক্তিটির আগে কোন অপরাধ করে থাকলেও পরে হয়ত আর কিছু করেনি। কোন ব্যক্তির পয়েন্ট ভ্যালু বেশি থাকলে পুলিশের সঙ্গে তার আরও বেশি যোগাযোগ ঘটার সম্ভাবনা থাকত। অধিকতর যোগাযোগ ঘটার মানে তার স্কোর আরও বেড়ে যাওয়া এবং তাতে করে পুলিশের সঙ্গে আরও বেশি যোগাযোগ ঘটা।

প্রযুক্তির সঙ্গে আইন পাল্লা দিয়ে চলছে না

পালান্টিরের বিগ ড্যাটাভিত্তিক পুলিশী কর্মকা- প্রচলিত আইনের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হচ্ছে না। অনেক ক্ষেত্রে সাংবিধানিক বিধান লঙ্ঘিত হচ্ছে। সোজা কথায় আইন প্রযুক্তির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে পিছিয়ে পড়ছে। ফলে আইনকে সে অনুসারে পরিবর্তিত করার প্রয়োজন অনুভূত হচ্ছে। তবে ভবিষ্যতে পুলিশের কর্মকা- কি হতে পারে পালান্টিরের ড্যাটা ব্যবস্থা থেকে তার একটা ধারণা পাওয়া যেতে পারে। সূত্র ॥ সিএনএন টেক

Facebook Comments